Bengali literary apps

"শরৎ-কথা" এটি উপন্যাসিক শরৎচন্দ্রের প্রায় ৪৫০টি উদ্বৃতি সংকলন সংগ্রহ বাংলা অ্যাপ।
শরৎ-কথা

“শরৎচন্দ্রের দৃষ্টি ডুব দিয়েছে বাঙালীর হৃদয় রহস্যে। সুখে দুঃখে মিলনে বিচ্ছেদে সংঘটিত বিচিত্র সৃষ্টির তিনি এমন করে পরিচয় দিয়েছেন বাঙালী যাতে আপনাকে প্রত্যক্ষ জানতে পেরেছে। তার প্রমাণ পাই তার অফুরাণ আনন্দে। যেমন অন্তরের সঙ্গে তারা খুশি হয়েছে, এমন আর কারাে লেখায় তারা হয়নি। অন্য লেখকেরা অনেকে প্রশংসা পেয়েছে কিন্তু সর্বজনীন হৃদয়ের এমন আতিথ্য পায়নি। এ বিস্ময়ের চমক নয়, এ প্রীতি! অনায়াসে যে প্রচুর সফলতা তিনি পেয়েছেন তাতে তিনি আমাদের ঈর্ষাভাজন।
আজ শরৎচন্দ্রের অভিনন্দনে বিশেষ গর্ব অনুভব করতে পারতুম যদি তাকে বলতে পারতুম তিনি একান্ত আমারি আবিস্কার, কিন্তু তিনি কারও স্বাক্ষরিত অভিজ্ঞানপত্রের জন্য অপেক্ষা করেন নি। আজ তার অভিনন্দন বাংলাদেশের ঘরে ঘরে স্বতঃউচ্ছ্বসিত। শুধু কথা-সাহিত্যের পথে নয়, নাট্যাভিনয়ে চিত্রাভিনয়ে তার প্রতিভার সংস্রবে আসবার জন্য বাঙালীর ঔৎসুক্য বেড়ে চলেছে। তিনি বাঙালীর বেদনার কেন্দ্রে আপন বাণীর স্পর্শ দিয়েছেন।
সাহিত্যে উপদেষ্টার চেয়ে স্রষ্টার আসন অনেক উচ্চে। চিন্তাশক্তির বিতর্ক নয়, কল্পনাশক্তির পূর্ণ দৃষ্টিই সাহিত্যে শাশ্বত মর্যাদা পেয়ে থাকে। কবির আসন থেকে আমি বিশেষভাবে সেই স্রষ্টা সেই দ্রষ্টা শরৎচন্দ্রকে মাল্যদান করি।”
— গভীর শ্রদ্ধায় অভিভূত কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ১৩৪৩ বঙ্গাব্দের ২৫শে আশ্বিন শরৎচন্দ্রের ৬১তম জন্মদিবসে অভিনন্দন জানিয়ে এই ঐতিহাসিক উক্তি করেছিলেন।
 নমুনা-

আকস্মিকভাবেই শরৎচন্দ্র একদিন বাংলা সাহিত্যের আসরে পদার্পণ করেছিলেন এবং প্রথম দিনেই আপন প্রতিভায় স্থান করে নিয়েছিলেন বাংলা সাহিত্যে এবং বাঙ্গালীর মনের কোনায়। তাঁহার সৃষ্টি নানান অনবদ্য অভিভাষণ, গল্প, প্রবন্ধ, এবং উপন্যাসের উদ্বৃতির অংশবিশেষকে সংকলিত করে এই অ্যাপটি প্রস্তুত করা হয়েছে। অ্যাপটি ডাউনলোড করে আপনার অ্যড্রয়েড মোবাইলে ইনস্টল করুন, পডুন এবং শরৎচন্দ্র বাবুর দৃষ্টিভঙ্গিতে নিজেকে আবিষ্কার করুন।
অ্যাপটি ডাউনলোড করুন, গুগলডাইভ হইতে- এখানে ক্লিক করুন
অথবা মিডিয়াফায়ার হইতে- এখানে ক্লিক করুন
ডাউনলোডের দ্বিতীয় পদ্ধতি- নীচে দেওয়া বারকোড স্ক্যান করুন ডাউনলোড করুন এবং অ্যাপটি আপনার অ্যানড্রয়েড মোবাইলে ইনস্টল করুন-
অথবা,
Sharat Chandra Chattopadhyay's Quotes collection app download and install.